fbpx
Thursday, April 25, 2024
spot_imgspot_img
HomeTipsআপনার প্রিয় বাইকের জন্য কোনটা ভালো petrol নাকি octane?

আপনার প্রিয় বাইকের জন্য কোনটা ভালো petrol নাকি octane?

আপনাকে যদি প্রশ্ন করি জ্বালানি ছাড়া বাইক চালানো কী সম্ভব? তাহলে আপনার উত্তর কী হবে, উত্তরটি হলো না। ব্যাটারি চালিত শক্তি ব্যবহার করেন আর জীবাশ্ম জ্বালানি সব ক্ষেত্রেই শক্তির প্রয়োজন।

আপনি বাইকার হলে জানা প্রয়োজন জ্বালানির ব্যাপারে। সাধারণত আমাদের দেশে বাইকে দুই ধরনের জ্বালানি ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সেনাবাহিনীর কিছু সংখ্যক ডিজেল চালিত বাইক আছে। তাই আজকের আলোচনা হবে petrol ও octane নিয়ে। চলুন তাহলে জেনে নেই কোন জ্বালানি আপনার বাইকের জন্য আদর্শ?

মোটর বাইক ইঞ্জিন

যেভাবে জ্বালানি ব্যবহার হয়

বাইকে জ্বালানি পুড়িয়ে শক্তি উৎপাদনের একই ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। বাতাসের সঙ্গে গ্যাসোলিনের মিশ্রণটি সিলিন্ডার বা কমবাশন চেম্বারে পাঠানো হয়। সেখানে পিস্টন ওই মিশ্রণকে সংকুচিত করে এবং স্পার্ক প্লাগ এতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর ফলে মিশ্রণটি বিস্ফোরিত হয় এবং এতে সৃষ্ট গ্যাসের প্রচণ্ড চাপ পিস্টনটিকে সিলিন্ডারের বাইরে দিকে ঠেলে দেয়। এই কাজের জন্যই জ্বালানির অধিকহারে প্রসারণ ও সংকোচন ক্ষমতা থাকতে হবে, তবে এটি নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় থাকতে হবে, এতে করে কমবিনেশন স্মুথ ও নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে।

এই আলোচনাটিতে আমরা অকটেন ও পেট্রোল এই দুটোর জন্যই গ্যাসোলিন শব্দটি ব্যবহার করবো।

জ্বালানি (পেট্রোল ও অকটেন) 

প্রথমেই আমাদেরকে জানতে হবে যে আমরা কোন ধরনের জ্বালানি ব্যবহার করছি এবং এটির মান কী রকম। অধিকাংশ বাইকাররা প্রকৃত তথ্য জানে না। সাধারণত আমরা বাইকে পেট্রোল ও অকটেন ব্যবহার করে থাকি।

কিন্তু প্রকৃতপক্ষে Octane ও Petrol নাম দিয়ে আসলে কোনো পার্থক্য করা যায় না। আন্তর্জাতিকভাবে অকটেন ও পেট্রোলকে ‘গ্যাসোলিন’ নামে ডাকা হয় এবং এদের রাসায়নিক গঠনও একই (C8H18)। তার মানে হলো, আমরা একে গ্যাসোলিন, পেট্রোল বা অকটেন যেকোনো নামেই ডাকতে পারি। আসলে আন্তর্জাতিকভাবে গ্যাসোলিন/ অকটেন/পেট্রোল যাই বলি না কেনো, এগুলোকে আলাদা করা হয় এদের রেটিং নাম্বার দ্বারা, যেটাকে অকটেন নাম্বার বা RON (রিসার্চ অকটেন নাম্বার) বলা হয়।

যে হিসাবে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন গ্যাসোলিন শুরু হয় অকটেন নাম্বার ৮৬ (Ron 86) থেকে এবং এটা সর্বোচ্চ ৯১, এবং ১০২-ও হতে পারে। তবে বিভিন্ন অকটেন নম্বরের গ্যাসোলিন কিন্তু রাসায়নিকভাবে একই বস্তু। পার্থক্য আসলে এদের সঙ্গে যুক্ত কিছু ডিটারজেন্ট ও রাসায়নিক পদার্থে, যেগুলো এই জ্বালানির দহন ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় (জ্বালানির সংকোচন, কমবাশনের ও প্রসারণের মাত্রা বাড়ায়)। যার ফলে বেশি অকটেন নম্বরের জ্বালানি ব্যবহারে সিলিন্ডারে স্মুথ কমবিনেশন হয় (পিস্টন, ভাল্ব বা কানেক্টিং রড থেকে কোনো নকিং হবে না)। 

আমাদের বাইকের জন্য আমরা যে Petrol ব্যবহার করি তার RON মাত্র ৮০, এবং অকটেন এর RON মাত্র ৯৫ হয়ে থাকে। আপনার ব্যবহৃত পেট্রোল RON যদি সর্বনিম্ন ৮৬-ও হয়, তাহলেও আপনার আর উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন জ্বালানি ব্যবহার করার দরকার নেই। কিন্তু আমাদের দেশে পেট্রোলের RON মাত্র ৮০! এটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃত মানের চেয়ে অনেক নিম্নস্তরের। এর মানে দাঁড়ায়, এই পেট্রোল বাইকে ব্যবহারের অযোগ্য! কিন্তু বাস্তবতাটা ঠিক এমন নয়।

আমাদের দেশের অধিকাংশ বাইকাররা কি উচ্চ মানের বাইক ব্যবহার করেন? উত্তরটা হলো, না। আমাদের অধিকাংশই সিঙ্গেল সিলিন্ডার, সিঙ্গেল পিস্টন, দুই ভাল্বযুক্ত এবং ৯:১ এর চেয়ে কম কম্প্রেশন রেশিও নির্ভর ১৫০ সিসি’র বাইক ব্যবহার করে। এসব বাইকের অধিকাংশরই ইঞ্জিন পারফরম্যান্স বাড়ানো যায় না। তাছাড়া এখনও দেশে প্রচুর পরিমাণ ২-স্ট্রোক বাইক আছে। এ সকল কারণে আমাদের  কম ক্ষমতা সম্পন্ন ৪-স্ট্রোক বাইকের জন্য RON ৮০ পেট্রোল ঠিকই আছে।

অকটেন (Octane)

আমাদের দেশে যে অকটেন পাওয়া যায় এর RON মাত্র ৯৫ বা অকটেন ৯৫। তাহলে আমরা অকটেন কোন ধরনের বাইকে ব্যবহার করবো? দেশে বর্তমানে অল্প কিছু উচ্চমানের বাইক পাওয়া যাচ্ছে। অধিকাংশ ১৫০ সিসি বা তদূর্ধ্ব বাইকেরই উচ্চমানের ৪-স্ট্রোকের ইঞ্জিন রয়েছে। এই সব ইঞ্জিনের কম্প্রেশন রেশিও বেশি থাকে এবং ভাল্বও দুইটির বেশি থাকে।
এই সব বাইকে মানসম্পন্ন গ্যাসোলিন (আন্তর্জাতিকভাবে সর্বনিম্ন RON ৮৬ হতে হবে) ব্যবহার করতে হয়, সেখানে আমাদের দেশে পেট্রোলের RON মাত্র ৮০! সেই জন্য ১৫০ সিসি বা তদূর্ধ্ব বাইকেরই উচ্চমানের ৪-স্ট্রোক বাইকে আমরা অকটেন ব্যবহার করতে পারি। তাছাড়া আমাদের দেশে ঋতু পরিবর্তনও একটি ফ্যাক্ট। শীতকালে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলেই প্রচুর ঠান্ডা থাকে এর ফলে তখন পেট্রোল এসব ইঞ্জিনের জন্য যথাযথ কার্যকর হয় না, সেই জন্য এই সব ইঞ্জিনের জন্য তখন অকটেন কার্যকারী হবে। 

পেট্রোল (Petrol)

আমাদের দেশে এখনো অধিকাংশই বাইক সিঙ্গেল সিলিন্ডার, সিঙ্গেল পিস্টন, দুই ভাল্বযুক্ত এবং ৯:১ এর চেয়ে কম কম্প্রেশন রেশিও নির্ভর ১৫০ সিসি’র বাইক ব্যবহার করে। ১৫০ সিসি’র নিচে যে সকল বাইক আছে এই সকল বাইকের ইঞ্জিন পারফরম্যান্স বাড়ানো যায় না। দেশে এখনও প্রচুর পরিমাণ ২-স্ট্রোক বাইক আছে। এ সকল কারণে আমাদের কম ক্ষমতা সম্পন্ন ২-স্ট্রোক/৪-স্ট্রোক বাইকের জন্য RON ৮০ পেট্রোল ব্যবহারের উপযোগী। কিন্তু ১৫০ সিসি’র উপরে যে বাইক গুলো আছে সে গুলোতেও Petrol ব্যবহার করলে ইঞ্জিনের কোনো ক্ষতি হবে না। 

সিদ্ধান্ত আপনার
মোট কথা বাইকের জন্য আপনি পেট্রোল অথবা অকটেন এই দুটিাই ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু শীতকালে বাইকে অকটেন ব্যবহার করলে আপনার বাইকের ইঞ্জিন পারফরম্যান্স ঠিক থাকবে। ১৫০ সিসি’র নিচের বাইক গুলোতে পেট্রোল ব্যবহার করা আদর্শ। ১৫০ সিসি’র উপরের বাইকের জন্য অকটেন বেশি উপযোগী। তাই আপনার প্রিয় বাইকের পারফরম্যান্স ঠিক রাখতে ইঞ্জিনের সিসি অনুযায়িী ও বাইক নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের নির্দেশনা অনুসারে পেট্রোল অথবা অকটেন ব্যবহার করুন।

আর মোটর বাইক চালানোর সময় অবশ্যই হেলমেট ব্যবহার করবেন।

Which is better for bikes petrol or octane?

আরো দেখুন
অ্যান্ড্রয়েডের ব্যাটারি চার্জ দেবেন যখন 

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Elliana Murray on ONLINE SHOPPING
Discover phone number owner on Fake app চেনার উপায়