fbpx
Thursday, April 25, 2024
spot_imgspot_img
HomeTechGoogle Search: গুগলে এসব জিনিস ভুলেও সার্চ দিবেন না

Google Search: গুগলে এসব জিনিস ভুলেও সার্চ দিবেন না

গুগলকে বলা যায় এক জ্ঞানের ভাণ্ডার। যে কোনো তথ্য জানতে ও খুঁজতে সকলে গুগলের উপর ভরসা রাখেন। কথ্য আছে, এম কোন কিছু নেই যা গুগলে পাওয়া যায় না। তবে সাবধান! কিছু স্পর্শকাতর তথ্য আছে যেগুলো জানতে গুগলে সার্চ দিলেই পরতে হবে বিপদে, এমনকি হতে পারে জেল। চলুন তাহলে দেখে নেই গুগলে নিষিদ্ধ জিনিসগুলো। 

পৃথিবীর প্রতিটা দেশের জন্যই গুগলের নিজস্ব নীতি রয়েছে। আবার গুগল সেই নীতিগুলো সে সব দেশের উপর জারি করে। গুগলে সার্চ করার সময় আমাদের সকলকেই একটু সতর্ক থাকতে হবে। কারণ গুগলে এমন কিছু স্পর্শকাতর বিষয় রয়েছে, সেগুলো সার্চ করলে  আপনার জন্য মহাবিপদের কারণ হতে পারে। এই জন্য গুগলে কোনো কিছু সার্চ করার আগে একটু চিন্তা ভাবনা করবেন।

খুব সাধারণ ভুলের কারণে ভিয়েতনামের এক ব্যক্তিকে গত বছরে পুলিশ গ্রেফতার করেছিল। এ জন্যই, গুগল সার্চিংয়ের সময় কোন কোন জিনিস খুঁজবেন আর কোন কোন জিনিস খুঁজবেন না এই বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে।

চলুন সে সব বিষয় একবারে জেনে নেই।

১. বোমা কীভাবে তৈরি হয়

আমাদেরকে গুগলে সার্চ দেওয়ার সময় সচেতন থাকতে হবে। আপনি যদি ‘‘বোমা কীভাবে তৈরি করে ’’ এই ধরনের বিষয়ের অনুসন্ধান করেন, তাহলে এটি আপনার জন্য ভয়ংকর হতে পারে। এই বিষয়টা গুগলে সার্চ করলে সরাসরি সরকারি নিরাপত্তা কর্মী এবং গুগলে সার্চ ইঞ্জিনের কর্মীদের টার্গেট হতে পারেন। শুধু বোমা তৈরি নয়, এমন কোন বিষয় যা মানুষের ক্ষতি করতে পারে, এই সকল বিষয় সার্চ করা আপনার জন্য বিপজ্জনক হতে পারে।

২. ব্যাংকিং সংক্রান্ত যে কোনও লিঙ্ক 

আপনি যদি গুগলে সার্চ দিয়ে কোন ব্যাংকের ওয়েবসাইটে ঢুকতে চান, তাহলে আগেই সাবধান হন। অনলাইনে ডুপ্লিকেট ও ভুয়ো অনেক ওয়েবসাইট থাকে। এই ওয়েবসাইট গুলো আপনাকে সর্বস্বান্ত করে দিতে পারে। অনেক সময় ব্যাংকের ওয়েবসাইটের আদলে ফিশিং সাইট তৈরি করে রাখে দুর্বৃত্তরা। আপনি ভুলে এমন কোনো সাইটে গিয়ে নিজের আইডি-পাসওয়ার্ড দিয়ে ফেললেই সর্বনাশ। তাই ব্যাংকিং-এর ক্ষেত্রে অবশ্যই সরাসরি ওয়েব অ্যাড্রেস টাইপ করে খুলুন। অনলাইন লেনদেনের সময় থাকুন সতর্ক। বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোর ওয়েবসাইট ভিজিট করুন এখানে

৩. গর্ভপাত সংক্রান্ত কোনও শব্দ লিখবেন না 

গুগল সার্চে নিয়মিত গর্ভপাত সংক্রান্ত যে কোনও বিষয়ের অনুসন্ধান ভয়ংকর হতে পারে। বিভিন্ন দেশে গর্ভপাত নিয়ে যেমন আইন আছে তেমনি গুগলও এ বিষয়ে বেশ সতর্ক। সেই দিকটা মাথায় রেখেই গুগলে গর্ভপাত নিয়ে আপনারও অত্যন্ত সতর্ক থাকা প্রয়োজন। 

৪. শেয়ারবাজার সংক্রান্ত তথ্য 

গুগলে শেয়ারবাজার সার্চ করলেই হাজারও ওয়েবসাইটে পাবেন নানান পরামর্শ। কিন্তু নির্দিষ্ট ও নামি কিছু ওয়েবসাইট ছাড়া শেয়ারবাজার সংক্রান্ত বুদ্ধি না নেওয়াই শ্রেয়। একইসঙ্গে বিভিন্ন ভুয়া সংস্থা ‘ট্রেডিং’-এর নাম করে প্রতারণার ফাঁদ পেতে থাকে। তাই এ বিষয়ে গুগল সার্চের ওপর বেশি নির্ভর না করাই ভালো। 

৫. চাইল্ড পর্ন সংক্রান্ত যে কোনও বিষয়ের অনুসন্ধান

পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় শিশু পর্নোগ্রাফিক সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ের অনুসন্ধান করাকে গুগল একবারেই ভালো চোখে দেখে না, এক কথায় নিষিদ্ধ। সহজ ভাবে বলতে গেলে, এই সব স্পর্শকাতর বিষয়গুলো গুগলে সার্চ করা বেআইনি। আপনি যদি অন্য কোন ভাবে গুগলের কাছ থেকে এই ধরনের কিছু অনুসন্ধান করেন, তা-ও কিন্তু ধরে ফেলতে পারে গুগল। এই জন্য, আপনার বাড়িতে পুলিশ যাতে কড়া না নাড়ে, তা নিশ্চিত করতে হলে এই বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে। 

৬. অপরাধমূলক কার্যকলাপ সম্পর্কিত প্রশ্ন 

এমন যে কোনো বিষয়, যা আপনার নজরে অপরাধমূলক, সে সংক্রান্ত কোনো প্রশ্ন গুগলকে করবেন না। কারণ, অপরাধমূলক তথ্যের অনুসন্ধান সব সময়ই বিপজ্জনক হতে পারে। যেমন ধরুন, কাউকে ভয় দেখাতে বা কাউকে আক্রমণ করার জন্য আপনি গুগলে গিয়ে বন্দুকের দাম দেখছেন, বা বন্দুকের মডেল দেখছেন, সার্চ করলেই আপনার জেল যাত্রাও হতে পারে। পাশাপাশি এমন কিছু মাদকদ্রব্য, যা আপনার দেশে বেআইনি বা নিষিদ্ধ, তার অনুসন্ধানেও আপনার জন্য অনেক ঝুঁকি হতে পারে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিরে কিন্তু ওত পেতে বসে আছে আপনার এই কার্যকলাপ ধরার জন্য।  তাই সাবধান।

৭. ই-মেইল আইডি 

আপনি কখনোই গুগল দিয়ে নিজের ই-মেইল আইডি খোঁজা চেষ্টা করবেন না। কারণ হ্যাকাররা সব সময় অপেক্ষায় থাকে, কে বা কারা তাদের ফাঁদে পা দেয়। হ্যাকাররা যদি আপনার মেইল পেয়ে যায় তাহলে সে আপনার গুপ্ত তথ্যগুলো সেখান থেকে বের করে নেয়ার চেষ্টা করবে। আর এটি আপনার জন্য বড় ধরনের ক্ষতির কারণ হতে পারে। তাই সকলের সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত। 

৮. ওষুধ ও চিকিৎসা

আপনি যদি কোনো সমস্যায় ভুগেন তাহলে সরাসরি চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। গুগলে দেওয়া বিভিন্ন তথ্য সব সময় সঠিক হয় না। গুগলে যেমন সঠিক তথ্য আছে ঠিক অপরপক্ষে ভুল তথ্যেরও ছড়াছড়ি। টুকটাক শরীর খারাপে  ওষুধ, প্রাথমিক চিকিৎসা ইত্যাদি দেখতে পারেন। কিন্তু শরীর খারাপের ক্ষেত্রে গুগল সার্চ করে কোন ওয়েবসাইট দেখে ডাক্তারি করা মোটেও বিচক্ষণতার কাজ নয়। গুগলে দেখা তথ্য অনুযায়ী ওষুধ কিনে বিপদে পড়তে পারেন। তাই স্পর্শকাতর বিষয়গুলোতে গুগল সার্চের ওপর নির্ভর করা উচিত নয়। ওষুধ এবং চিকিৎসার জন্য অবশ্যই একজন রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

৯. কাস্টমার কেয়ার নম্বর

অনেকেই বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য কাস্টমার কেয়ারের নম্বর গুগল এ  খুঁজে থাকেন।  এটি অবশ্যই করবেন না। অনেক ক্ষেত্রেই সেখানে হ্যাকাররা ভুলভাল নম্বর দিয়ে রাখে।  সেই নম্বরে ফোন করলেই হতে পারেন ক্ষতিগ্রস্ত। এমনকি অ্যাকাউন্ট থেকে সব টাকা ছিনিয়ে নিয়ে সর্বশান্তও হতে পারেন।

১০. অ্যাপ ও সফটওয়্যার

অনেকেই বিভিন্ন অ্যাপ ও সফটওয়্যার সরাসরি গুগল সার্চ করে খোঁজেন। এমন কিছু অ্যাপও থাকে যা গুগল প্লে স্টোরে থাকে না। কিন্তু এভাবে ডট এপিকে ফাইল ডাউনলোডের ক্ষেত্রে সবসময়েই ঝুঁকি থেকে যায়। অজানা সাইট থেকে অ্যাপের আকারে ডাউনলোড হতে পারে ম্যালওয়্যার। ইনস্টল করার সঙ্গে সঙ্গেই আপনার প্রাইভেসির দফারফা। স্মার্টফোনের বারোটাও বাজতে পারে। আপনার ফোনের নিয়ন্ত্রণ চলে যেতে পারে হ্যাকারদের কাছে।

১১. গুগলে  বিভিন্ন অফারের খোঁজ 

বিভিন্ন ডিসকাউন্ট অফার পেতে  অনেকেই গুগলের আশ্রয় নেন। সার্চ রেজাল্টে হাজারো  অফারের লিংক পাবেন। অপরিচিত এসব লিংকে ক্লিক করলেই বিপত্তি,  দুর্বৃত্তরা হাতে নিতে পারে আপনার সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।  তাই অফারের ফাঁদে না পড়ে যে সাইটে কেনাকাটা করতে চান সরাসরি তাদের ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কিনুন। এতে আপনি সুরক্ষিত থাকবেন।

১২.  ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস পেতে

সাধারণত কম্পিউটারের নিরাপত্তা রক্ষার জন্য আমরা এন্টিভাইরাস ব্যবহার করে থাকি।  সুবিধা ভেদে এসব অ্যান্টিভাইরাসের দাম ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে।  অনেকেই বিনামূল্যে এসব অ্যান্টিভাইরাস কিনতে google এ সার্চ দিয়ে থাকেন। ‘ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস’ খোঁজ করলে  জানা এবং নাম না জানা অনেক অ্যান্টিভাইরাস পাবেন যেগুলো আসলে ভুয়া। এসব অ্যান্টিভাইরাসের বিভিন্ন তথ্য  আকর্ষণীয় হলেও ইনস্টল করার পর দেখা দিতে পারে বিপত্তি। আপনার ডিভাইসের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। তাই গুগলে ফ্রি এন্টিভাইরাস সার্চ না দিয়ে জনপ্রিয় অ্যান্টিভাইরাসগুলোর ওয়েবসাইট থেকে বা কোন রিটেইলার সব থেকে অ্যান্টিভাইরাস কিনে তারপর ব্যবহার করুন,  এতে আপনার তথ্য নিরাপদ থাকবে।

১৩.  নানা ধরনের ছাড়ের কুপন 

কিছুটা খরচ বাঁচাতে অনেকেই কেনাকাটার জন্য কুপন সার্চ দিয়ে থাকেন।  তবে সাবধান, এসব কুপনের আড়ালে  অনেক ভুয়া ওয়েবসাইট পাবেন যেগুলোতে প্রবেশ করলেই আপনার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি হয়ে যেতে পারে। তাই ছাড়ের জন্য এসব থার্ড পার্টি ওয়েবসাইটের উপর নির্ভর না করে সরাসরি কেনাকাটার সাইট  ভিজিট করুন।  তাদের দেয়া ছাড়গুলো নিতে পারেন।

১৪. সরকারি নানান তথ্য ও সেবা

বিভিন্ন দাপ্তরিক কাজে ও নাগরিক প্রয়োজনে অনেকেই সরকারি ওয়েবসাইটগুলোতে প্রবেশ করেন।  তবে এসব ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে গুগলে সার্চ দেয়ার ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করবেন। যেহেতু এসব ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি সেহেতু দুর্বৃত্তরা হুবহু ওয়েবসাইট ক্লোন করে রাখে।  এসব ক্লোন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলেই আপনার তথ্য চুরি হয়ে যেতে পারে। গুগল সার্চে দেখা অনেক ওয়েবসাইট প্রকৃত মনে হলেও তা আসলে প্রতারণার বিশাল ফাঁদ।  সে কারণে সতর্কতার সাথে এসব সরকারি ওয়েবসাইটের ওয়েব ঠিকানা লিখে প্রবেশ করুন।

এসব আলোচনা থেকে বুঝতেই তো পারছেন গুগল যে রকম আমাদের অনেক দীর্ঘ কাজকে সহজ করে দেয় ঠিক তেমনি ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় অনেক গুণ।  তাই গুগলে  তথ্য খোঁজার ক্ষেত্রে নিশ্চিন্ত হয়ে এবং সময় নিয়ে তারপর ওয়েবসাইটগুলোকে পর্যবেক্ষণ করুন।  আপনার ছোট্ট একটি ভুলে সহজেই চুরি হয়ে যেতে পারে আপনার মূল্যবান তথ্য।  এবং এই তথ্য দিয়েই আপনি প্রতারিত হতে পারেন দুর্বৃত্তদের কাছে।

আর বিভিন্ন ফিশিং ওয়েবসাইট এবং অনলাইন স্প্যামারদের থেকে নিরাপদ থাকতে আপনার কম্পিউটার বা মোবাইলের  অপারেটিং সিস্টেমের নিরাপত্তা সংস্করণ সবসময় আপডেট রাখুন।

সহযোগিতায়
সৌম্য সরকার

আরও দেখুন

RELATED ARTICLES

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Elliana Murray on ONLINE SHOPPING
Discover phone number owner on Fake app চেনার উপায়